ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড । NID Card Download – NIDW

এই লেখাটিতে দেখানো পদ্ধতি অনুসরণ করে খুব সহজেই আপনার মোবাইল ফোন থেকে ভোটার আইডি ডাউনলোড করতে পারবেন। ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড এর সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া দেখুন।

ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য যাচাইয়ের জন্য, যারা নতুন ভোটার নিবন্ধন হয়েছেন এখনো এনআইডি কার্ড পাননি অথবা কোন কারনে ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে ফেলেছেন আপনারা চাইলে খুব সহজেই অনলাইন থেকে ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন।

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড প্রক্রিয়া

ভোটার আইডি ডাউনলোড করার জন্য প্রথমে services.nidw.gov.bd ওয়েবসাইটে ভিজিট করুন। এরপরে ফরম নাম্বার বা এনআইডি নাম্বার, জন্ম তারিখ, বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা প্রদান করে ফেইস ভেরিফিকেশন সম্পন্ন করে পাসওয়ার্ড সেট করে “ডাউনলোড” বাটনে ক্লিক করুন।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের nidw ওয়েবসাইট থেকে ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড প্রক্রিয়া অনেক সহজ। তবে শুধুমাত্র সঠিক নিয়ম জানা প্রয়োজন। আপনি যদি ভুলক্রমে ভোটার আইডি কার্ড হারিয়ে ফেলেন, তাহলে এই পদ্ধতি ব্যবহার করে ভোটার আইডি কার্ডের অনলাইন কপি ডাউনলোড করতে পারবেন।

অথবা আপনি যদি নতুন ভোটার নিবন্ধন করেন, এবং কোন গুরুত্বপূর্ণ কাজের জন্য আপনার ভোটার আইডি কার্ড প্রয়োজন হয় তাহলে খুব সহজেই নিচে দেখানো পদ্ধতি অনুসরণ করে আইডি কার্ড ডাউনলোড করুন।

NID Card Download করতে কি কি প্রয়োজন

ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার পূর্বে অবশ্যই নিচে উল্লেখিত ডকুমেন্টস ও ইকুইপমেন্ট গুলো সংগ্রহ করে রাখবেন।

  • Nidw থেকে আইডি কার্ড ডাউনলোড এর জন্য ২টি ডিভাইস প্রয়োজন হবে। প্রথম ডিভাইস থেকে Nidw অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ভিজিট করতে হবে, এবং দ্বিতীয় ডিভাইস (অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন) থেকে ফেইস ভেরিফিকেশন করতে হবে।
  • অবশ্যই ডিভাইস গুলোতে ইন্টারনেট কানেকশন থাকতে হবে।
  • একটি সচল মোবাইল নাম্বার, অথবা ভোটার নিবন্ধনের সময় যেই মোবাইল নাম্বারটি প্রদান করেছিলেন সেটি প্রয়োজন হবে।
  • ভোটার আইডি কার্ড নাম্বার অথবা ভোটার স্লিপ নাম্বার।
  • ভোটার আইডি কার্ড অনুযায়ী জন্ম তারিখ।
  • বর্তমান ঠিকানা ও স্থায়ী ঠিকানা।

এগুলো সংগ্রহ করে নিচে দেখানো পদ্ধতি অনুসরণ করে ভোটার আইডি ডাউনলোড করুন, ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড এর সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া নিচে ধাপ অনুসারে দেখানো হলো।

ধাপ ১: Nidw ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন।

এনআইডি কার্ডের অনলাইন কপি ডাউনলোড এর জন্য বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের Nidw অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে হবে। কেননা ভোটার নিবন্ধনের সকল তথ্যগুলো Nidw ওয়েব সাইটে সংরক্ষণ করা হয়।

Nidw ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার জন্য https://services.nidw.gov.bd/nid-pub/ এই লিংকে ক্লিক করুন।

ধাপ ২: একাউন্ট রেজিস্টার করুন।

Nidw ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পরে একাউন্ট রেজিস্টার করার জন্য প্রথমে “রেজিস্টার একাউন্ট” বাটনে ক্লিক করুন। এরপরে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার বসিয়ে দিয়ে, জাতীয় পরিচয় পত্র অনুযায়ী জন্ম তারিখ বসিয়ে দিন।

যদি জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার না জানা থাকে বা নতুন নিবন্ধন হয়েছেন এখন পর্যন্ত আইডি কার্ড হাতে পাননি তাহলে নিবন্ধনের সময় নির্বাচন অফিস থেকে দেওয়া স্লিপ নাম্বারটি প্রদান করুন। ও ভোটার নিবন্ধনে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী জন্ম তারিখ বসিয়ে দিন।

এই তথ্যগুলো যথাক্রমে প্রদান করে নিচে থাকা ক্যাপচা কোডটি পূরণ করে “সাবমিট” বাটনে ক্লিক করুন। যদি Nidw ওয়েবসাইটে পূর্বে অ্যাকাউন্ট রেজিস্টার করা থাকে তাহলে জাতীয় পরিচয় পত্র নাম্বার অথবা ইউজারনেইম এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করে নিবেন।

ধাপ ৩: ঠিকানা প্রদান করুন।

অ্যাকাউন্ট রেজিস্টরের তথ্যগুলো প্রদান করার পরে আপনার বর্তমান ঠিকানা ও স্থায়ী ঠিকানা প্রদান করতে হবে। যথাক্রমে এনআইডি কার্ডে দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বর্তমান ঠিকানা ও স্থায়ী ঠিকানা প্রদান করুন। এখানে জেলা, উপজেলা, বিভাগ বসিয়ে দিতে হবে। বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা বসিয়ে “পরবর্তী” বাটনে ক্লিক করুন।

ধাপ ৪: মোবাইল ভেরিফিকেশন করুন।

ঠিকানা প্রদান করার পরে মোবাইল নাম্বার ভেরিফিকেশন পেইজে নিয়ে আসা হবে। এখানে অটোমেটিক ভাবে ভোটার নিবন্ধনের সময় দেওয়া মোবাইল নাম্বারটি চলে আসবে। যদি মোবাইল নাম্বার না আসে তাহলে একটি নতুন সচল মোবাইল নাম্বার বসিয়ে দিন।

এরপরে ভেরিফিকেশনের জন্য “বার্তা পাঠান” বাটনে ক্লিক করুন। উক্ত নাম্বারে এনআইডি সার্ভিস থেকে ৬ ডিজিটের একটি ওটিপি কোড পাঠানো হবে, উক্ত কোডটি বসিয়ে মোবাইল নাম্বার ভেরিফিকেশন সম্পন্ন করুন।

ধাপ ৫: Nid Wallet অ্যাপস ডাউনলোড।

মোবাইল নাম্বার ভেরিফিকেশন করার পরে একটি নূতন পেজ ওপেন হবে এখানে একটি QR কোড আসবে।

প্রথমে আপনার দ্বিতীয় ডিভাইস থেকে অর্থাৎ মোবাইল ফোন থেকে গুগল প্লেস্টোরে গিয়ে Nid Wallet এপ্লিকেশনটি ইন্সটল করুন। এরপরে মালিকানা যাচাই করার জন্য Nid Wallet অ্যাপসটি ওপেন করে প্রথম ডিভাইসে থাকা QR কোডটি স্ক্যান করুন।

ধাপ ৬: ফেইস ভেরিফিকেশন করুন।

QR কোড স্ক্যান করার পরে Nid Wallet অ্যাপস থেকে Start Face Scan বাটনে ক্লিক করে ফেইস ভেরিফিকেশন শুরু করতে হবে। Start Face Scan বাটনে ক্লিক করার পরে অটোমেটিক ক্যামেরা ওপেন হবে এখানে ব্যক্তির মুখমন্ডল প্রথমে সোজাসুজি ক্যামেরার দিকে রেখে, এরপরে একটু ডানে ও বামে ঘুরিয়ে ফেইস ভেরিফিকেশন সম্পূর্ণ করুন।

ধাপ ৭: পাসওয়ার্ড সেট করুন।

ফেইস ভেরিফিকেশন সম্পূর্ণ হলে প্রথম ডিভাইসে পাসওয়ার্ড সেট নামক একটি পেজ ওপেন হবে। ভবিষ্যতে ফেইস ভেরিফিকেশন সম্পর্কিত ঝামেলা এড়িয়ে চলতে একটি স্ট্রং পাসওয়ার্ড সেট করে পাসওয়ার্ডটি আপনার কাছে সংরক্ষণ করে রাখুন।

ধাপ ৮: আইডি কার্ড ডাউনলোড করুন।

সঠিকভাবে পাসওয়ার্ড সেট করা হলে অটোমেটিক nidw ওয়েবসাইটে লগইন হয়ে যাবে। এরপরে প্রোফাইল অপশনে প্রবেশ করে একটু নিচে লক্ষ্য করুন “ডাউনলোড” নামক একটি অপশন দেখতে পাবেন।

ডাউনলোড অপশনে ক্লিক করার পরে আপনার ভোটার আইডি কার্ডটি ডিভাইসে পিডিএফ ফাইল হিসেবে ডাউনলোড হবে।পরবর্তীতে এটিকে প্রিন্ট করে ভোটার আইডি কার্ড অনলাইন কপি হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেন। এই আইডি কার্ড দ্বারা যাবতীয় নাগরিক সেবা উপভোগ করতে পারবেন।

আরো পরুন-

Similar Posts

2 Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *